শত্রুতা ভুলে আরও ঘনিষ্ঠ হচ্ছে সউদী আরব এবং ইরান

মধ্যপ্রাচ্যের দুই বৈরী দেশ সউদী আরব ও ইরান দীর্ঘদিন পর আবারও কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। এরপর থেকেই ওই অঞ্চলে স্থিতিশীলতার আশা সৃষ্টি হয়েছে। এবার দেশ দুটি ইঙ্গিত দিয়েছে, তারা আরও ঘনিষ্ঠ হতে চায়, নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক চুক্তি করতেও আগ্রহী তারা।

দীর্ঘ সাত বছর পর চীনের মধ্যস্থতায় গত মার্চে সউদী আরব ও ইরান আবারও কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এরপর গত বৃহস্পতিবার প্রথমবারের মতো রিয়াদ সফরে গেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ান। সেদিনই তিনি সউদী আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহানের সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে হাজির হন।

সউদী আরবের জেদ্দা থেকে প্রকাশিত ইংরেজি ভাষার সংবাদপত্র সউদী গেজেটের অনলাইন সংস্করণের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, সংবাদ সম্মেলনে সউদী আরবের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান বলেন, ইরানের সঙ্গে তাঁর দেশ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও জোরদার করতে আগ্রহী। দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক আঞ্চলিক নিরাপত্তার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

প্রিন্স ফয়সাল আরও বলেন, ‘চুক্তি বাস্তবায়নের কাঠামোর মধ্যে উভয় দেশের মিশন তাদের কাজ আবার শুরু করেছে। এ জন্য রাষ্ট্রদূতও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ইরানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সউদী আরব আগের নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক চুক্তিগুলো সচল করতে আগ্রহী। ওয়ার্ল্ড এক্সপো-২০৩০ আয়োজনে সউদী আরবকে সমর্থন করার জন্য ইরানের প্রতি কৃতজ্ঞতাও জানান তিনি।

এদিকে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ান তাঁর রিয়াদ সফরকে ‘ফলপ্রসূ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। দীর্ঘমেয়াদি আঞ্চলিক ইস্যুগুলো সমাধানে দুই দেশ একত্রে কাজ করতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই অঞ্চলে সউদী আরবের ভূমিকাকে ইরান মূল্য দেয়।

তিনি আরও বলেন, সউদী আরবের সঙ্গে তাঁর দেশের সম্পর্ক সঠিক ধারায় এগোচ্ছে। তাঁর দেশ সউদী আরবের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলেও জানান তিনি। এ সময় তিনি জানান, ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি শিগগিরই সউদী আরব সফর করবেন।

প্রিন্স ফয়সাল গত জুনে তেহরান সফর করেন। ওই সফরে তিনি ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির আব্দুল্লাহিয়ানের সঙ্গে বৈঠক করেন। এর আগে গত মার্চে সউদী আরব ও ইরান ঐতিহাসিক এক চুক্তিতে সম্মত হয়। এ চুক্তির অধীনে রিয়াদ ও তেহরান দুই দেশে দূতাবাস ও কনস্যুলেট আবার খুলতে রাজি হয়। একই সঙ্গে ২০ বছরের বেশি আগে স্বাক্ষরিত নিরাপত্তা, সুরক্ষা ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা চুক্তি বাস্তবায়নে রাজি হয়। সউদী আরব ২০১৬ সালে তেহরানের দূতাবাস এবং মাশহাদে কনস্যুলেটে হামলার পর ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে। (ইনকিলাব)

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও