আইএসআই-এর ভুয়ো সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউণ্ট নিয়ে সতর্কতা ভারতীয় গোয়েন্দাদের

 

কিছু মহিলা পাকিস্তানি ইন্টেলিজেন্স অপারেটিভস (পিআইও) জাল সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল ব্যবহার করে ভারতীয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীর কর্মকর্তাদের টার্গেট করছে, পাঞ্জাবের পুলিশ সদর দপ্তরে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা সংস্থাগুলি একটি সতর্কতা জারি করে বিবৃতি দিয়েছে। পাঞ্জাব ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশ (ডিজিপি) ১৪ টি সন্দেহজনক প্রোফাইলের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে যা ভারতীয় অফিসারদের প্রলুব্ধ করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

“এই মহিলা পিআইওদের নামগুলি সাধারণ ভারতীয় মহিলাদের নামের মতো, যাতে ভারতীয়রা সহজেই তাদের বিশ্বাস করতে পারে। আমরা এই ধরনের এক ডজনেরও বেশি ভুয়ো প্রোফাইল ব্লক করেছি কিন্তু লোকেদের ফাঁসানোর জন্য প্রতিদিন নতুন প্রোফাইল তৈরি করা হচ্ছে,” একজন সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম এবং টেলিগ্রাম সহ বেশ কয়েকটি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে জালি প্রোফাইলগুলি পাওয়া গেছে।
‘‘যেহেতু আমরা সীমান্ত জেলা এবং ভারত-পাকিস্তান সীমান্ত অত্যন্ত সংবেদনশীল পাঠানকোট এলাকা থেকে মাত্র ২৬ কিলোমিটার দূরে এবং একটি অত্যন্ত সংবেদনশীল প্রকৃতির এলাকা তাই আমরা অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করছি,’’ বলেছেন একজন সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা। তিনি আরও বলেন, মহিলাদের ভুয়ো ছবি ব্যবহার করে অ্যাকাউন্ট তৈরি করা হয়।

একজন ব্যক্তি এই ধরনের ভুয়ো প্রোফাইলের সঙ্গে কথা বলা শুরু করার পরে, তাদের অশ্লীল ছবি ভাইরাল করা হবে বলে ব্ল্যাকমেল করা হয় এবং দেশের নিরাপত্তা সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হয়, কর্মকর্তা যোগ করেছেন।

তদন্তে দেখা গেছে যে মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে জাল সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে ৩২৫ জনেরও বেশি লোকের সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিল।
গত পাঁচ বছরে এমন বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে যেখানে কর্মকর্তারা এই ধরনের জালি অ্যাকাউন্টের শিকার হয়েছেন। পরে আইএসআই-এর সাথে গোপন তথ্য শেয়ার করার জন্য অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের অধীনে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশনে (ডিআরডিও) একটি বড় চাঞ্চল্য হয়েছিল যখন ডিআরডিও বিজ্ঞানী প্রদীপ কুরুলকারকে দেশের ব্রহ্মোস ক্ষেপণাস্ত্রের গোপন তথ্য ফাঁস করার অভিযোগে গুপ্তচরবৃত্তির জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছিল। নিজেকে জারা দাশগুপ্ত বলে পরিচয় দিয়ে তার সঙ্গে ‘সুমধুর’ সম্পর্ক গড়ে তোলা হয় একটি জালি অ্যাকাউন্ট থেকে। ব্রাহ্মোস ক্ষেপণাস্ত্র প্রকল্পের একটি অত্যন্ত গোপনীয় রিপোর্ট দেখানোর জন্য চলতি বছরের মে মাসে কুরুলকারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

অতীতে আইএসআই-এর সাথে সংবেদনশীল তথ্য শেয়ার করার অভিযোগে আরও অনেক কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

(সুত্র: গণশক্তি)

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও