চাঁদের বুকে নামছে চন্দ্রযান-৩…মারা গেলেন কাউন্টডাউনে কণ্ঠ দেওয়া ইসরোর বিজ্ঞানী এন ভালারমতি

২৩ আগস্ট-এর সেই রুদ্ধশ্বাস সন্ধ্যায় তাঁর কণ্ঠেই গোটা বিশ্ব শুনেছিল চন্দ্রযান-৩-এর চাঁদের পৃষ্ঠে অবতরণের সমস্ত তথ্য। তিনি ইসরোর বিজ্ঞানী এন ভালারমতি। ৬৪ বছর বয়সে শনিবার সন্ধ্যায় চেন্নাইয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। ২৩ আগস্ট ল্যান্ডার বিক্রমের গতি কমানো থেকে পাখির পালকের মতো চাঁদের মাটিতে অবতরণ অর্থাৎ সফ‌্ট ল্যান্ডিং সংক্রান্ত চন্দ্রযানের যাবতীয় গতিবিধি একনাগাড়ে গোটা বিশ্বকে জানিয়ে চর্চার কেন্দ্রস্থলে থাকা ভালারমতি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বলে জানা গিয়েছে।
ইসরোর পিআরও অনুসারে, ভালারমতি সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টারের রেঞ্জ অপারেশন প্রোগ্রাম অফিসের অংশ ছিলেন। তিনি ভারতের প্রথম রাডার ইমেজিং স্যাটেলাইট আরআইএসএটি-১-এর প্রকল্প পরিচালকও ছিলেন।
তামিলনাড়ুর আরিয়ালুরের বাসিন্দা ভালারমতি, ৩১ জুলাই, ১৯৫৯ সালে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি কোয়েম্বাটুরের সরকারি কলেজ অফ টেকনোলজি থেকে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে স্নাতক হন। ১৯৮৪ সালে তিনি ইসরোয় যোগ দেন। তিনি ভারতের প্রথম দেশীয় রাডার ইমেজিং স্যাটেলাইট (আরআইএস) এবং দেশের দ্বিতীয় উপগ্রহ আরআইএসএটি-১-এর প্রকল্প পরিচালক ছিলেন। ২০১৫ সালে, তিনি আবদুল কালাম পুরস্কার পান। তামিলনাড়ু সরকার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি আবদুল কালামের সম্মানে ২০১৫ সালে এই পুরস্কারটি চালু করেছিল। বিজ্ঞানী এন ভালারমতি প্রথম এই পুরস্কারটি পান।

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও