সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উদ্যোগের অংশ হিসাবে ছাত্রদের মসজিদে নিয়ে যাওয়ায় বরখাস্ত করা হল অধ্যক্ষকে

 

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রচারের উদ্যোগের অংশ হিসাবে একাদশ শ্রেণীর ছাত্রদের একটি দলকে মসজিদে নিয়ে যাওয়ায় গোয়ার একটি বেসরকারী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষকে বরখাস্ত করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, এবিষয়ে পুলিশের অভিযোগ পওয়ার পর ওই বেসরকারি বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
কেশব মূর্তি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ শঙ্কর গাঁওকর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রচারের অংশ হিসেবে স্টুডেন্ট ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়ার আমন্ত্রণে ছাত্রদের ডাবলিমের একটি মসজিদে নিয়ে গিয়েছিলেন।
এসআইও জোনাল প্রেসিডেন্ট উসমান খান জানান, ঘটনাটি ঘটেছে ৯ সেপ্টেম্বর। মসজিদ পরিদর্শনরত ছাত্রদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পরপরই, হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন বিশ্ব হিন্দু পরিষদ পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছে যে গাওঙ্কর মহিলা ছাত্রদের মাথায় স্কার্ফ পরতে এবং ইসলামী আচার পালন করতে বাধ্য করেছিলেন।

খান আরও বলেন,“আমরা বেশ কয়েক বছর ধরে এই ধরনের কার্যক্রমের আয়োজন করে আসছি। SIO-এর ‘মসজিদ পরিদর্শন’ প্রোগ্রামটি ঠিক এটি করার চেষ্টা করে, সম্প্রদায়ের মধ্যে ব্যবধান দূর করে এবং আরও ভাল বোঝাপড়ার প্রচার করে”।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বরখাস্ত হওয়া ওই অধ্যক্ষ জানিয়েছেন, “তিনজন ছাত্রী এবং একজন শিক্ষক সহ আমাদের স্কুলের মোট ২১জন ছাত্রকে মসজিদে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। ছাত্রদের দেখানো হয়েছিল যেখানে নামাজ অনুষ্ঠিত হয় এবং মসজিদে প্রবেশ-প্রস্থান এলাকা। কিছু ছাত্র সম্মানের জন্য তাদের মাথা ঢেকে থাকতে পারে। ছাত্রদের হিজাব পরতে বা আচার-অনুষ্ঠান করতে বাধ্য করা হয়েছিল এই দাবিটি মিথ্যা”।
অধ্যক্ষ আরও বলেন, যে অতীতে, স্কুলটি ছাত্রদের মন্দির ও গীর্জায় নিয়ে যেত কারণ সেখানে সমস্ত ধর্মের শিশুরা পড়াশোনা করত।

এদিকে, হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীর অভিযোগের পর, ভাস্কো পুলিশ বরখাস্ত করা অধ্যক্ষ শঙ্কর গাঁওকর এবং স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া (এসআইও)-এর ভাস্কো ইউনিট সেক্রেটারি আবদুল রেহমানকে, তাঁর বক্তব্য রেকর্ড করার জন্য তলব করেছে।

অন্যদিকে, এসআইও সুশীল সমাজকে “সমাজে একটি ইতিবাচক পরিবেশ তৈরির লক্ষ্যে এমন উদ্যোগের” পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে। তিনি কেশব স্মৃতি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনার কাছে অধ্যক্ষের সাসপেনশন প্রত্যাহার করার আবেদন জানিয়েছেন।

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও