‘এক দেশ এক ভোট’ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দৃষ্টি আকর্ষণের কৌশল, মন্তব্য বিআরএস নেতার

 

তেলেঙ্গানার ক্ষমতাসীন দল ভারত রাষ্ট্র সমিতি (বিআরএস) মঙ্গলবার এক দেশ এক নির্বাচনকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির “একটি মনোযোগ বিমুখ করার কৌশল” বলে অভিহিত করে বলেছে যে, তিনি যদি এই ইস্যুটি সম্পর্কে আন্তরিক হন তবে, তিনি বিশেষ ক্ষেত্রে এর জন্য একটি বিল আনতে পারতেন। সম্প্রতি সংসদে বিশেষ অধিবেশন ডাকা হয়েছিল। বিআরএসের কার্যকরী সভাপতি ও তেলেঙ্গানার মন্ত্রী কে টি রামা রাও মোদিকে মনোযোগ বিমুখ রাজনীতির মাস্টার বলে অভিহিত করেছেন।
এদিন এক সাংবাদিক সম্মেলনে কেটিআর বলেন,“প্রধানমন্ত্রী মোদি স্বাধীন ভারতের সবচেয়ে অদক্ষ, অযোগ্য প্রধানমন্ত্রী এবং সম্ভবত সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত। তাই জনগণের দৃষ্টি সরিয়ে নিতে তিনি সব ধরনের কৌশল অবলম্বন করবেন”।
বিআরএস নেতা আরও বলেন, মোদির অধীনে ভারত স্বাধীন ভারতে রুপির সর্বনিম্ন মূল্য এবং সর্বোচ্চ মুদ্রাস্ফীতি এবং বেকারত্বের সর্বোচ্চ হার দেখেছে। তিনি বলেন, মোদি ভারতের জনগণের কাছে যে সমস্ত প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তাতে ব্যর্থ হয়েছেন। জনপ্রিয় নেতা হিসাবে পরিচিত কেটিআর তেলেঙ্গানা রাজ্য এবং এর গঠন প্রক্রিয়া সম্পর্কে মোদির বারবার বিবৃতি দেওয়ার বিষয়েও আপত্তি জানিয়েছেন। সংসদে মোদির সাম্প্রতিক মন্তব্যের উল্লেখ করে, তিনি বলেন, এটিই প্রথম উদাহরণ নয় যেখানে প্রধানমন্ত্রী তেলেঙ্গানা গঠন সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্য করেছিলেন এবং এটি ঐতিহাসিক তথ্যের প্রতি তাঁর সম্পূর্ণ অবজ্ঞা প্রতিফলিত করে।
তিনি আরো বলেন, বহু দশক ধরে অসংখ্য ত্যাগ ও সংগ্রামের দ্বারা চিহ্নিত এই রাজ্যের যাত্রাপথ। তেলেঙ্গানা তার রাজ্যের মর্যাদা উদযাপন করেনি এমন পরামর্শ দেওয়া কেবল বাস্তবিকই ভুল নয় বরং এটি অজ্ঞতা এবং অহংকারের পরিচয় দেয়।
কেটিআর বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদি সংসদের অভ্যন্তরে এবং অন্যান্য বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একই ধরণের বিবৃতি দিয়েছেন যা তেলেঙ্গানার জনগণের অনুভূতিতে আঘাত করেছে। তাঁর দাবি, প্রধানমন্ত্রী এবং বিজেপির কেবল তেলেঙ্গানার প্রতি ঘৃণা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, তেলেঙ্গানার জনগণের অনুভূতিকে ক্রমাগত অপমান করার জন্য প্রধানমন্ত্রী মোদির ক্ষমা চাওয়া উচিত।

১ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রীর তেলেঙ্গানা সফর প্রসঙ্গে কেটিআর বলেন, তিনি তেলেঙ্গানায় ভোট খুঁজতে আসছেন। কেটিআর উল্লেখ করেছেন, মোদি সরকার এপি পুনর্গঠন আইন ২০১৪-এ দেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলিকে সম্মান করেনি। তিনি বলেন, “যখনই তারা তেলেঙ্গানায় এসেছে, তারা খালি হাতে এসেছে এবং তাদের খালি ভোটে ফিরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হওয়া উচিত”।
মাহাবুবনগরে মোদির আসন্ন সফরের বিষয়ে, বিআরএস নেতা বলেন, তিনি ওই অঞ্চলের মানুষের প্রতি যে অবিচার করেছিলেন তাঁর জন্য মাহাবুবনগরে পা রাখার অধিকার তার নেই। ২০১৪ সালে সরকার গঠনের এক মাসের মধ্যে সিএম কেসিআর কীভাবে কালেশ্বরাম প্রকল্প বা পালামুরু লিফ্ট ইরিগেশন স্কিমের (পিএলআইএস) জন্য জাতীয় মর্যাদার জন্য অনুরোধ জানিয়ে নতুন দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছেছিলেন তাও স্মরণ করেন কেটিআর।
তিনি বলেন, “তারা কর্ণাটকের উচ্চ ভাদ্র এবং অন্ধ্র প্রদেশের পোলাভারমকে জাতীয় মর্যাদা দিয়েছে কিন্তু পালামুরু প্রকল্পকে উপেক্ষা করেছে”। তিনি আরও বলেন, মোদী সরকার কখনই কৃষ্ণা জল বিরোধের সমাধান করতে আগ্রহী ছিল না যা তেলেঙ্গানার প্রতি একটি বিশাল অবিচার ছিল। অন্তত এখন, প্রধানমন্ত্রীর পালামুরু প্রকল্পের জাতীয় মর্যাদা ঘোষণা করা উচিত।

সূত্র: সিয়াসত ডেইলি

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও