২৫ লক্ষ ভুয়ো ‘জব কার্ড’ তৈরি করানো হয়েছে! কেন্দ্রীয় প্রকল্পে ‘দুর্নীতির’ সিবিআই তদন্তের হুমকি মন্ত্রী গিরিরাজের

 

তৃণমুল কংগ্রেস ‘বঞ্চনার’ অভিযোগ তুলছে আর বিজেপি বলছে, দুর্নীতির তদন্ত হবে। অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের মধ্যে পড়ে একশো দিনের কাজ বন্ধ রাজ্যে।

এদিকে সোমবার গান্ধীজয়ন্তীতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে নয়াদিল্লিতে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের ধর্না কর্মসূচির দিনেই বাংলায় কেন্দ্রীয় প্রকল্পের অর্থ নয়ছয়ের অভিযোগ তুললেন কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী গিরিরাজ সিংহ। সেই সঙ্গে তাঁর ঘোষণা, ‘‘এ নিয়ে সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করার সময় এসে গিয়েছে।’’
গিরিরাজ বলেন, ‘‘২৫ লক্ষ ভুয়ো ‘জব কার্ড’ তৈরি করানো হয়েছে। সেই টাকা চুরি করা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলছি, গরীবের টাকা ফেরত দিন।’’
কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আরও বলেন, ‘‘বাংলায় একশো দিনের কাজের প্রকল্পের অন্তর্গত বক্ষরোপণ কর্মসূচির গাছ ‘হাতিতে খেয়ে নিয়েছে’ বলে অসত্য ব্যাখ্যা দিয়ে টাকা চুরি করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় যাঁর দোতলা বাড়ি রয়েছে তিনি টাকা পেয়েছেন। অন্য দিকে, প্রকৃত গরীব যাঁর আবাস যোজনার টাকা প্রাপ্য, বঞ্চিত হয়েছেন।’’

অন্যদিকে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘সিবিআই তদন্ত হলে আমাদের কোনও আপত্তি নেই।’’ কিন্তু সেই তদন্ত আদালতের পর্যবেক্ষণে হতে হবে বলে জানান অভিষেক।

বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শিবরাজ বলেন, ‘‘পশ্চিমবঙ্গের প্রতি কোনও বঞ্চনা করা হয়নি। বরং ইউপিএ জমানার তুলনায় বর্তমান সরকারের আমলে অনেক বেশি অর্থ দেওয়া হয়েছে।’’
গিরিরাজের দাবি, ২০২২ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত একশো দিনের কাজের প্রকল্পে বাংলাকে ৫৪ হাজার ১৫০ কোটি টাকা দিয়েছে কেন্দ্র। ইউপিএ আমলে দেওয়া হয়েছিল ১৪ হাজার কোটি টাকা।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ আরও বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় আমরা পশ্চিমবঙ্গকে ৩০ হাজার কোটি টাকা দিয়েছি, প্রথমে ৪৫ লক্ষ এবং তার পর আরও ১১ লক্ষ বাড়ি বানানোর টাকা দেওয়া হয়েছে। ইউপিএ আমলে দেওয়া হয়েছিল ৫,৪০০ কোটি টাকা। সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গকে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার ১১ হাজার কোটি টাকা দিয়েছে। ইউপিএ সরকার দিয়েছিল মাত্র ৪,৪০০ কোটি।’’

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও