স্কুল বন্ধ রাজ্যের, বাড়ছে আরএসএস’র ‘বিদ্যামন্দির’

 

প্রতীম দে, গণশক্তি:

শুধু ইতিহাস নয়। রাজ্যের স্কুল শিক্ষার গোটা পাঠ্যক্রমেই বদল এনেছে মমতা ব্যানার্জির সরকার। পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত আলাদা করে বিজ্ঞান, ভুগোল, ইতিহাস বলে কোনও বিষয় নেই। সব একসঙ্গে করে একটিই পাঠ্য বই হয়েছে যার নাম ‘পরিবেশ’। সেখানে আবার এক একটি অধ্যায় গল্পের ছলে লেখা হয়েছে।
তৃতীয় শ্রেণি থেকেই একজন পড়ুয়া ইতিহাস, ভুগোল, বিজ্ঞানের মতো বিষয় আলাদা আলাদা ভাবে পড়তে শুরু করে। অল্প অল্প করে তাদের মধ্যে একটা ধারণা তৈরি হতে থাকে। কিন্তু আমাদের রাজ্যে উল্টো। ষষ্ঠ শ্রেণিতে গিয়ে একজন ছাত্র জানতে পারছে আকাশ গঙ্গা কি? মুঘল সাম্রাজ্য কে কবে প্রতিষ্ঠা করে? বৃষ্টি কি ভাবে হয়? বায়ুমন্ডল কি?

বেসরকারি স্কুলেও কি ষষ্ঠ শ্রেণিতে গিয়ে এই সব জানছে ছাত্রছাত্রীরা?
না। একদমই নয়।
তারা অনেক আগে থেকেই এই সব বিষয় জানছে। তারা ‘সিভিক্স’ আলাদা ভাবে পড়ে নিজেদের মধ্যে একটা ধারণা তৈরি করছে দেশ, সমাজ, রাজনীতির মতো বিষয়ে।
আমাদের রাজ্যে আট হাজার বেশি স্কুল বন্ধ হওয়ার মুখে। এই সময়ের রাজ্যে মাথা চাড়া দিচ্ছে আরএসএসের স্কুল সরস্বতী বিদ্যামন্দির।

বাঁকুড়ার গঙ্গাজল ঘাঁটি ব্লকে বন্ধ হওয়ার মুখে ৩২টি স্কুল। ৩০-এর নিচে ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যা থাকার কারণে বন্ধ হওয়ার পথে স্কুলগুলি। উল্টো দিকে ওই ব্লকেই রমরমিয়ে চলছে সরস্বতী বিদ্যামন্দির। আরএসএস পরিচালিত স্কুল সরস্বতী বিদ্যামন্দির।
মাত্র দু’বছরের মধ্যে মাথা ছাড়া দিয়েছে এই তিনটি স্কুল। তিনটি স্কুলেই পড়ুয়ার সংখ্যা সরকারি স্কুলগুলির চেয়ে বেশি।

কী পড়ানো হয় এই স্কুলে? মাধ্যমিক উচ্চ-মাধ্যমিকের পাঠ্যক্রম মেনে কী পড়ানো হয়?
না।
একই পাঠ্যক্রম নয়। আরএসএসের পাঠ্যক্রম চলে সেখানে। ইতিহাস, ভুগোল, বিজ্ঞান, অঙ্কের মতো সব বিষয় পড়ানো হয়। কিন্তু তা আরএসএস’র তৈরি করা সিলেবাসে। যেই সিলেবাসে নেই কোন বিজ্ঞান ভিত্তিক আলোচনা।
অষ্টম শ্রেণির ইতিহাসের পাঠ্যক্রম যদি দেখা যায় তাহলে ওপর থেকে দেখলে মনে হবে বাকি পাঁচটা বোর্ডের মতোই সিলেবাস। কিন্তু না।

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় ভিত্তিক বা পর্যায় ভিত্তিক কোন অধ্যায় নেই। আছে শুধু একটা অধ্যায়। যেখানে ১৮৭০-১৯৪৭ পর্যন্ত গোটা স্বাধীনতা আন্দোলনকে দেওয়া হয়েছে!
মাত্র একটি অধ্যায়। স্বাধীনতা আন্দোলনে গান্ধীর ভূমিকা কী? সুভাষ বসুর আজাদ হিন্দ ফৌজ কী করল? চিত্তরঞ্জন দাস, সূর্য সেন, ভগৎ সিং, চন্দ্রশেখর আজাদের ভূমিকা সব কিছু একটি অধ্যায়ে।
অন্যদিকে আমাদের রাজ্যের বা সিবিএসই, আইএসসি বোর্ডর অষ্টম শ্রেণির ইতিহাস বইয়ের দিকে যদি দেখি তাহলে দেখা যাবে অন্য চিত্র। ঘটনা ভিত্তিক বা পর্যায়ক্রমে অধ্যায়। যা পড়ে ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সম্পর্কে একটা সম্যক ধারনা তৈরি হবে একজন ছাত্র বা ছাত্রীর মনে।
ভুগোলে আরএসএস কি পড়াচ্ছে? অষ্টম শ্রেণিতে পড়ানো হচ্ছে কৃষি, শিল্প, মানব সম্পদ। যা অন্যান্য জায়গায় সাধারণত পঞ্চম শ্রেণিতে পড়িয়ে থাকা হয়। সাধারণত অষ্টম শ্রেণিতে জলবায়ুর পরিবর্তন, পৃথিবীর অন্দর, বিভিন্ন মহাদেশের সম্পর্কে পড়ানো হয়।
জীবন বিজ্ঞানে আরএসএস পড়াচ্ছে কী ভাবে ফসল ফলাতে হয় এবং তার রক্ষণাবেক্ষণ কি ভাবে করা যেতে পারে।
রাজ্যের সরকারি স্কুল এবং আরএসএস পরিচালিত স্কুলের পাঠ্যক্রমে আকাশ পাতাল ফারাক। পাঠ্যক্রমে যখন এতো ফারাক তখন কেন ছাত্র ছাত্রীরা সেই স্কুলে যাচ্ছে?
(সৌজন্যে: গণশক্তি)

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও