নিট ফলাফল প্রত্যাহার এবং পুনঃপরীক্ষার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন ছাত্র সংঠনের

মেডিক্যাল প্রবেশিকা পরীক্ষা নিটে একাধিক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ফলাফল নিয়েও শুরু হয়েছে একাধিক বিতর্ক। নিটের ফলাফলে ৬৭ জন পরীক্ষার্থীর ১০০ শতাংশ নম্বর পাওয়া নিয়েও চলছে জোর চর্চা। এই প্রথমবার নিটে এত বড় সংখ্যক শীর্ষস্থান অধিকার করেছে। এদিকে ছাত্র সংগঠন স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া (এসআইও) সুপ্রিম কোর্টে একটি পিটিশন দাখিল করেছে। নিট পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ করে, ফলাফল প্রত্যাহার করে আবার পরীক্ষা পরিচালনা করার জন্য সুপ্রিম কোর্টে অনুরোধ করা হয়েছে। আবেদনকারীরা গ্রেস মার্ক দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ করেছেন। এই বিষয়ে যুক্তি দেওয়া হয়েছে, অনেক শিক্ষার্থীর দ্বারা প্রাপ্ত ৭২০ এর মধ্যে ৭১৮ এবং ৭১৮ এর মতো উচ্চ নম্বর পরিসংখ্যানগতভাবে অসম্ভব। সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা পিটিশনে বলা হয়েছে, ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি দ্বারা সময় বিলম্বের কারনে গ্রেস নম্বর প্রদান করা যা পক্ষপাতমূলক। অভিযোগ করেছে, এটি কিছু ছাত্রকে পিছনের দরজা দিয়ে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য করা হয়েছে।

আবেদনকারীরা ৫ মে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার ব্যাপক অভিযোগও উল্লেখ করেছেন। পেপার ফাঁসের অভিযোগে পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে ইতিমধ্যেই সুপ্রিম কোর্টে দুটি আবেদন করা হয়েছে। ১৭ মে, সুপ্রিম কোর্ট একই ধরনের একটি পিটিশনে নোটিশ জারি করে। তবে ফলাফল ঘোষণায় স্থগিতাদেশ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে তারা। বর্তমান পিটিশনটি যথাক্রমে তেলেঙ্গানা ও অন্ধ্র প্রদেশের বাসিন্দা আবদুল্লাহ মোহাম্মদ ফয়েজ এবং ডক্টর শেখ রোশন মোহিদিন দায়ের করেছিলেন। আবেদনকারীরা ছাত্র সংগঠন এসআইও’র সদস্য। আবেদনকারীরা প্রশ্ন ফাঁসের তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত নিট ভর্তির জন্য পরিচালিত কাউন্সেলিংয়ে স্থগিতাদেশ দেওয়ারও দাবি করেছেন। এছাড়াও, পরীক্ষা পরিচালনায় কথিত অনিয়মের তদন্তে একটি বিশেষ তদন্ত দল (এসআইটি) গঠনের দাবিও করেছে।

সর্বশেষ সংবাদ

জনপ্রিয় গল্প

সর্বশেষ ভিডিও